হরিশ্চন্দ্রপুরের পিপলা রামকৃষ্ণ ফ্যানস ক্লাবের এবারের থিম হাজার হাতের দুর্গা

Newsbazar24: বাঙালির সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয়া দুর্গোৎসবের আর মাত্র প্রায় মাস খানেক বাকি আছে। তারপরেই শরতের কাশফুল আর শিউলি ফুলের সমাহারে দেবী দুর্গার আগমনে মেতে উঠবে রাজ্যবাসী। একদিকে যেমন ব্যস্ত প্রতিমা শিল্পীরা অন্যদিকে ব্যস্ততা পূজো উদ্যোক্তাদের মধ্যেও।
উত্তর মালদার চাচল মহকুমার যে কয়টি দুর্গাপুজোকে কেন্দ্র করে মানুষের উৎসাহ ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যায় তার মধ্যে অন্যতম হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের পিপলা রামকৃষ্ণ ফ্যানস ক্লাবের পুজো। বিগত বছরে উত্তরবঙ্গের সব থেকে বড়় দূর্গা বানিয়ে জেলা জুড়ে চমক সৃষ্টি করেছিল এই ক্লাব। মালদা সহ পার্শ্ববর্তী রাজ্য বিহার থেকে বহু দর্শনার্থীর সমাগম হয়েছিল এই পূজা মন্ডপে প্রতিমা দর্শন করার জন্য । বিগত বছরের ন্যায় এ বছরও পিপলা রামকৃষ্ণ ফ্যানস ক্লাবের পুজো নিয়ে থাকবে চমক । খুঁটি পুজোর মধ্যে দিয়ে পুজোর প্রস্তুতি শুরু করে দিল রামকৃষ্ণ ফ্যান্স ক্লাব। এবারে তাদের থিম থাকছে হাজার হাতের দুর্গা।প্রতিমা শিল্পী মালদার সহদেব পাল। প্যান্ডেলের সাঁঝ সজ্জায় রয়েছেন চাঁচলের সাদেকুল আলম। ব্যবস্থা করা হয়েছে আকর্ষণীয় আলোকসজ্জার। উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এছাড়াও থাকছে বিশেষ চমক। কিন্তু সেই চমক এখনই প্রকাশ্যে আনতে রাজি হননি ক্লাব কর্তৃপক্ষ। পুরাণ গ্রন্থাদি ও বিভিন্ন স্থাপত্য-ভাস্কর্যে দেবী দুর্গার সহস্র হাতের কথা
আমরা জানতে পারি। তবে দশভুজা রূপটিই সমধিক জনপ্রিয়। এই দশ হাতেই তিনি মহিষাসুরকে বধ করেছিলেন। দেবীর দশ হাতকে হাজার হাতের সাথে তুলনা করে তাদের এই ভাবনা বলে উদ্যোক্তাদের সূত্রে জানা গেছে। প্রতিবারই এই পুজোকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠে এক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পরিবেশ। কারণ এই পুজোর প্রধান উদ্যোক্তা হরিশ্চন্দ্রপুরের তৃণমূল নেতা জেলা পরিষদের সদস্য বুলবুল খান।তাই ধর্ম,বর্ণ নির্বিশেষে সকলে মেতে উঠে দেবীর আরাধনায়।
পিপলা রামকৃষ্ণ ক্লাবের সম্পাদক বুলবুল খান জানান, গত বছর আমাদের থিম ছিল উত্তরবঙ্গের সব থেকে বড় দুর্গা। বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে জেলা সহ পার্শ্ববর্তী রাজ্য বিহার থেকে মানুষের ঢল নেমেছিল মণ্ডপে। এই বছর মূল আকর্ষণ হাজার হাতের দুর্গা। এছাড়াও বিশেষ চমক থাকবে।